বায়ুদূষণ এবং ভবিষ্যৎ স্বাস্থ্যঝুঁকি!

গর্জন ডেস্ক: বর্তমান সময়ে পরিবেশ দূষণের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ দিক হল বায়ুদূষণ। সাধারণত শহরাঞ্চল বিশেষত বড়ো বড়ো মেট্রো শহরগুলিতেই ভয়াবহ বায়ুদূষণ দেখা যায়। ভারতের রাজধানী নিউদিল্লি বা বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকাতে বায়ুদূষণের কথা সর্বজনবিদিত। আর বায়ুদূষণের কারণে মানবস্বাস্থ্য নানাভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

বাতাসের গুণমানের সূচককে একিউআই (AQI) বলা হয়, যা প্রতিদিনের বাতাসের অবস্থা নির্ধারণে ব্যবহৃত হয় এবং নির্ণয় করে আপনার চারপাশের বাতাস কতটা পরিষ্কার বা দূষিত এবং এই দূষণের মাত্রা স্বাস্থ্যের ওপর কী প্রভাব ফেলতে পারে।

বাতাসের গুণমানের সূচকটি কণাযুক্ত-বস্তুর-পরিমাপ (পিএম ২.৫ এবং পিএম ১০), ওজোন (O3), নাইট্রোজেন ডাইঅক্সাইড (NO2), সালফার ডাইঅক্সাইড (SO2) ও কার্বন মনোক্সাইড (CO) নির্গমনের ওপর ভিত্তি করে নির্ধারণ করা হয়েছে। মূলত বাতাসে অতি সূক্ষ্ম বস্তুকণা পিএম-২.৫ এর পরিমাণ পরিমাপ করে বায়ুর মান নির্ধারণ করা হয়। পিএম-২.৫ কণা পিএম ১০ কণার চেয়ে বেশি বিপজ্জনক, এ কারণে যে এটি দীর্ঘ সময় (দিন বা সপ্তাহ) বাতাসে থাকে এবং বাতাসের মাধ্যমে অনেক দূর ছড়িয়ে যেতে পারে।

আর সূক্ষ্ম কণা হওয়ার ফলে ফুসফুসের গভীরে প্রবেশ করে এবং দ্রুত ফুসফুস আক্রান্ত করে। একিউআই সূচকে বায়ুর মান, শূন্য থেকে ৫০ থাকলে ওই স্থানের বাতাস স্বাস্থ্যকর। ১০০ থেকে ১৫০ এর মধ্যে থাকলে প্রত্যেকের স্বাস্থ্যের ওপর প্রভাব পড়তে পারে, বিশেষ করে শিশু, বৃদ্ধ ও রোগীরা স্বাস্থ্যঝুঁকিতে পড়তে পারেন।

আর, ২০০ থেকে ৩০০–এর মধ্যে থাকা মানে খুবই অস্বাস্থ্যকর। এতে স্বাস্থ্য সতর্কতাসহ জরুরি অবস্থা হিসেবে বিবেচিত হয়। এ অবস্থায় শিশু, প্রবীণ ও অসুস্থ রোগীদের বাড়ির ভেতরে এবং অন্যদের বাড়ির বাইরের কার্যক্রম সীমাবদ্ধ রাখার পরামর্শ দেওয়া হয়ে থাকে। বায়ুর মান ৩০০–র বেশি থাকা মানে ওই স্থানের বায়ু ‘বিপজ্জনক’ বোঝায়। বায়ুদূষণ আমাদের স্বাস্থ্যের ওপর নানাভাবে মারাত্মক প্রভাব ফেলছে।

ফুসফুসের নানা রোগ, নিউমোনিয়া, অ্যাজমা, শ্বাসকষ্ট, ক্যানসার, লিউকেমিয়া, অটিজম, স্নায়ুজনিত সমস্যা বেড়ে যাওয়া, বুদ্ধিমত্তা কমে যাওয়াসহ অনেক শিশু দূষণের ফলে নানা স্বাস্থ্য সমস্যা নিয়ে জন্ম নিচ্ছে। পিওর আর্থের মতে, বিশ্বব্যাপী অসংক্রামক রোগের প্রধান কারণ দূষণ।

অসংক্রামক রোগের মৃত্যুর ৭২ ভাগ এর জন্য দায়ী, যার ১৬ ভাগ দূষণের কারণে ঘটে থাকে। এছাড়া, কার্ডিওভাসকুলার রোগের ২২ ভাগ, স্ট্রোক ২৫ ভাগ, ফুসফুসের ক্যানসারে ৪০ ভাগ ও ক্রনিক অবস্ট্রাক্টিভ পুলমানারি ডিজিজ (COPD) ৫৩ ভাগ মৃত্যুর জন্য দায়ী বিষাক্ত দূষণ।

অন্যদিকে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) বলছে, বায়ুদূষণে প্রতি বছর ৭০ লাখ মানুষ অকালে মারা যান। এ অবস্থায় অন্যান্য যেকোনো সমস্যা সমাধানের মতো বায়ুদূষণকেও গুরুত্বপূর্ণ সমস্যা ভেবে দ্রুত এই সমস্যা সমাধানে প্রশাসনের এগিয়ে আসা উচিত। এটি যেমন আমাদের বসবাসের জন্য জরুরি তেমনি আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্মের স্বাস্থ্যঝুঁকি কমাতেও অনেকটা সহায়ক ভূমিকা রাখবে। তথ্যসূত্র: দ্য ডেইলি স্টার

খবরটি শেয়ার করুন....
© All rights reserved  2022 DesherGarjan
Design & Developed BY Subrata Sutradhar
%d bloggers like this: